বুধবার, ২৭ মার্চ, ২০১৯

শুরু হল আরও একটি অনশন আন্দোলন ! সরকারের বিরুদ্ধে চলছে একের পর এক মরণপণ লড়াই


শুরু হল আরও একটি অনশন আন্দোলন ! সরকারের বিরুদ্ধে চলছে একের পর এক মরণপণ লড়াই 


শুরু হল আরও একটি অনশন আন্দোলন ! সরকারের বিরুদ্ধে চলছে একের পর এক মরণপণ লড়াই 


একের পর এক আন্দোলন পসচিম্বঙ্গে হয়ে চলেছে । একটা আন্দোলন শেষ হতে না হতে আর একটা আন্দোলন শুরু হচ্ছে। এর আগে আপ্নারা জানেন যে  MSK SSK  শিক্ষকরা একটি জোরদার আন্দোলন করেছিলেন । সাতদিন ধরে সেই আন্দোলন চলেছিল । এবং কলকাতার রাজপথ স্তব্ধ হয়ে গেছিল হাজার হাজার MSK  SSK শিক্ষকদের মিছিলে । আপ্নারা জানেন গত ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে অনশন চলছে নবম থেকে দ্বাদশ যেসব শিক্ষক শিক্ষিকা রয়েছেন ওয়েটিং লিস্টে সেইসব ৪০০ জন শিক্ষক শিক্ষিকারা অনশন করছেন আজ ২৯ দিন হতে চলল । সেই অনশনের এই অনশন মিটতে না মিটতেই আজ থেকে আবার শুরু হল আরও একটি অনশন । জেতি শুরু হল কলকাতার সুবোধ মল্লিক স্কয়ারে । আপার প্রাইমারিতে শিক্ষকতা করার পরীক্ষায় যোগ্যতা অর্জনকারী যুবক যুবতীরা ।
শেষ আপার প্রাইমারী পরীক্ষা হয়েছিল ২০১৫ সালের ১৬ ই আগস্টে । এই পরীক্ষার ফলপ্রকাশ হয়েছিল ২০১৬ সালের ১৪ ই সেপ্টেম্বর । এরপর থেকে বিভিন্ন কারনে নিয়োগ আটকে যেতে থাকে । ফলে এর বিরুদ্ধে জোরদার আন্দোলন শুরু হয় ! ২০১৮ সালের  ২২ মার্চ  এমনই একটি জোরদার আন্দোলন দেখা যায় কলকাতার বুকে  । একরকম বাধ্য হয়েই সরকার ফাস্ট ফেজের একটি লিস্ট প্রকাশ করে । কিন্ত ঐপর্যন্তই  , এরপর আবার সব স্তব্ধ হয়ে যায় । ২০১৯ সালের ৭ ই ফেব্রুয়ারি নতুন করে এস এস সি অফিস ঘেরাও করা হয় । এরপর দিন বিধাননগর পুলিশ এই আন্দলনের সাথে যুক্ত আটজনকে  লক আপে নেই । ঐদিনই তাদের ছেড়ে দেওয়া হয় । ঐ রাতেই কমিশনের ওয়েবসাইটে ফাস্ট ফেজের ডকুমেন্ট ভেরিফিকেশনের জন্য নোটিশ দেওয়া হয় ।
সরকার ২০১৬ সালে আপার প্রাইমারীতে চৌদ্দ হাজার আটশ শুন্যপদ ঘোষণা করা হয়  । এবং এর মধ্যে ১০ % সংরক্ষিত ছিল প্যারা টিচারদের । অর্থাৎ ফ্রেসারদের জন্য ১৩৩২০ টি শূন্যপদ ছিল ।অন্যদিকে ফাস্ট ফেজে যারা  অনুপস্থিত ছিল তাদের জায়গায় দ্বিতীয় ফেজে প্রার্থীদের ডাকা হয় । আর এই দ্বিতীয় ফেজেই ব্যাপক দুর্নীতি হয়েছে বলে অভিযোগ । তাদের অভিযোগ যোগ্য প্রশিক্ষন প্রাপ্ত প্রার্থী থাকা সত্ত্বেও অপ্রশিক্ষনদের ডাকা হয়েছে । আরও মজার বিষয় হল গেজেটের নিয়ম অনুসারে ইন্টার্ভিউ এর ১৫ দিন আগে পর্যন্ত সমস্থ শুন্যপদ আপডেট করা হবে । অন্যদিকে শিক্ষা মন্ত্রী বিধানসভাতে ঘোষণা করে ছিল সাত হাজার শিক্ষক নিয়োগ হবে নিউ সেটআপ স্কুলের জন্য  । কিন্তু কোন নিয়ম মানেননি বলে অনশনকারীদের অভিযোগ অনশনকারীদের ।
এই অবস্থায় দাড়িয়ে এইসকল শিক্ষকেরা বেশকিছু দাবী নিয়ে অনশন শুরু করলেন কলকাতার সুবোধ মল্লিক স্কয়ারে । এখন দেখার বিষয় সরকারপক্ষ এই  অনশনকারীদের সম্পর্কে কি মনোভাব গ্রহন করে ।  
  

রবিবার, ৪ নভেম্বর, ২০১৮

উচ্চ মাধ্যমিকে পাশ করলেই এই ব্যাংকে চাকরি, কীভাবে জেনে নিন

উচ্চ মাধ্যমিকে পাশ করলেই এই ব্যাংকে চাকরি, কীভাবে জেনে নিন


প্রচুর চাকরির সুযোগ। ব্যাংক অফ বরোদাতে একাধিক পদের জন্যে আবেদন জানাতে পারবেন। অনলাইন কিংবা অফলাইন অর্থাৎ সরাসরি আবেদন জানাতে পারবেন। আবেদনে র ক্ষেত্রে প্রয়োজন নুন্যতম শিক্ষাগত যোগ্যতা। আবেদনের আগে জেনে নিন আবেদন করার ক্ষেত্রে নুন্যতম শিক্ষাগত যোগ্যতা কিংবা অন্যান্য শর্ত কি রয়েছে?
জরুরি এই তথ্যগুলি জেনে নিন-
Clark
. Group Head
. Operations Head
. Senior Relationship Manager
. Client Service Executive
. Chief Executive Officer
. Technology Architect Lead
. Program Manager
. Database Architect and Mobile Application Developer

No of Seat : Various Posts
Type Of Employment : Full Time
Salary : Rs 8200 – 40200 /- With G.P.
Name Of Organisation : Bank of Baroda
Age Limit : 20 – 42 Years
Educational Qualification : You have to complete your 10th / 12th Exam..
কীভাবে আবেদন জানাবেন?
Official Website: www.bankofbaroda.co.ইন। আবেদনের আগে অবশ্যই জেনে নিন জরুরি এই তথ্যগুলি।

বৃহস্পতিবার, ১ নভেম্বর, ২০১৮

মানবদেহ নিয়ে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য/বিভিন্ন পরীক্ষায় আসার মত প্রশ্ন

মানবদেহ নিয়ে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য/বিভিন্ন পরীক্ষায় আসার মত প্রশ্ন

১। হাড় সংখ্যা - ২০৬
২। পেশী সংখ্যা - ৬৩৯
৩। কিডনি সংখ্যা - ২
৪। দুধ দাঁতের সংখ্যা - ২০
৫। পাঁজড় সংখ্যা - ২৪ (১২ জোড়া)
৬। হৃদয়ের চেম্বার সংখ্যা - ৪
৭। স্বাভাবিক রক্তচাপ - ১২০/৮০
৮। রক্তের PH - ৭.৪
৯। মেরুদন্ড মেরুদন্ডের সংখ্যা - ৩৩
১০। নেক মধ্যে #Vertebrae সংখ্যা - ৭ টি
১১। মাঝারি কানের হাড়ের সংখ্যা - ৬
১২। মুখে হাড় #সংখ্যা - ১৪
১৩। স্কাল মধ্যে হাড় সংখ্যা - ২২
১৪। বুকে হাড় সংখ্যা - ২৫
১৫। অস্ত্র হাড় সংখ্যা - ৬
১৬। মানুষের প্রতিটি কানের ভিতরে ৩টি করে হাড় থাকে। এগুলোর নাম হলঃ ম্যালিয়াস, ইনকাস, স্টেপিস (কানের বাহির থেকে ভিতরের দিকে সিরিয়াল অনুযায়ী। মনে রাখার সূত্র: MIS।)
২ কানে মোট ৬ টি হাড় থাকে। এগুলোর মধ্যে স্টেপিস হল মানব দেহের ক্ষুদ্রতম হাড়।
১৭। মানুষের বাহুতে পেশীর সংখ্যা - ৭২
১৮। হৃদয়ের পাম্প সংখ্যা - ২
১৯। বৃহত্তম #অঙ্গ - চামড়া
২০। বৃহত্তম গ্রান্তি - লিভার
২১। ছোট কোষ - রক্তের কোষ
২২। বৃহত্তম #কোষ - ডিম সেল (ডিম্ব)
২৩। ছোট হাড় - স্ট্যাপ
২৪। সর্বাধিক #ধমনী - বারোটাবারোটা
২৫। আমাদের দেহের রক্তে একটি সমুদ্রের সম পরিমাণ লবন রয়েছে।
২৬। দৈনিক আমাদের হৃদপিণ্ড ১০০বার করে আমাদের দেহে রক্ত ঘুরিয়ে ফিরিয়ে প্রবাহিত করে।
২৭। আমাদের চোখের একটি পাপড়ি ১৫০ দিন বেঁচে থাকে। এর পর নিজে থেকেই ঝড়ে পড়ে।
২৮। আমাদের চোখের ওপর ভ্রুতে তে ৫০০ টি লোম আছে।
২৯। ১০০ বিলিয়ন এর অদিক নার্ভ সেল নিয়ে আমাদের দেহ গঠিত।
৩০। মানুষ চোখ খুলে হাঁচি দিতে পারেনা।
৩১। পাথর থেকে মানুষের দেহের হাড় ৪ গুণ বেশি শক্তিশালী।
৩২। আমরা যখন খাবার খাই আমাদের মুখে সে খাবারের স্বাদ ১০ দিন পর্যন্ত থাকে।
৩৩। মানুষ হাঁটুর ক্যাপ ছাড়া জন্মগ্রহণ করে এবং তা ২ থেকে ৬ বছর পর্যন্ত দেখা যায়না।
৩৪। মানব শিশু বসন্ত কালে দ্রুত বৃদ্ধি পায়।
৩৫। আমাদের চোখ সবসময় একই রকম থাকে কিন্তু কান ও নাক বৃদ্ধি পাওয়া কখনোই থেমে থাকেনা।
৩৬। আমরা জন্মগ্রহণ করি ৩০০ হাড় নিয়ে কিন্তু প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার পর আমাদের দেহে ২০৬ টি হাড় থাকে।
৩৬। আমাদের মাথার খুলি ২৬ ধরণের ভিন্ন ভিন্ন হাড় দিয়ে তৈরি।
৩৮। আমাদের হাতের নখে যেই পদার্থ আছে ঠিক সেই পদার্থ দিয়ে আমাদের চুল তৈরি হয়ে থাকে, ফলে হাত এবং চুল উভয়ই একই জিনিস তবে দুইটির ঘনত্ব আলাদা।

সোমবার, ২৯ অক্টোবর, ২০১৮

চাপা দেওয়া ইতিহাসের ঢাকনা তুলে সম্মান জানানো হল ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী নেতাজী সুভাষচন্দ্র কে

চাপা দেওয়া ইতিহাসের ঢাকনা তুলে সম্মান জানানো হল ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী নেতাজী সুভাষচন্দ্র কে



গত 21 শে অক্টোবর এক ব্যাতিক্রমী ঘটনা ঘটল। ১৫ আগষ্ট ছাড়াও ২১ অক্টোর পতাকা উত্তোলন করলেন প্রধামন্ত্রী। চলেছেন লালকেল্লায় আজাদ হিন্দ সংগ্রহশালা স্থাপন করতে।
কিন্তু কেন?
১৯৪৩ এর ২১ অক্টোবর ভারত মাতার বীর সন্তান নেতাজী সুভাষচন্দ্র বোস তেরঙা পতাকা উত্তোলন করে ভারতের স্বাধীনতা ঘোষনা করেছিলেন। গড়েছিলেন আজাদ হিন্দ সরকার। তিনি হয়েছিলেন সেই স্বাধীন ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী। প্রধান উপদেষ্টা হয়েছিলেন রাসবিহারী বসু। জাতীয় সঙ্গীত হয়েছিল "জনগন মন"।
সাত সাতটি দেশ স্বীকৃতি দিয়েছিল সেই স্বাধীন রাষ্ট্র ভারতবর্ষকে।
কিন্তু স্বদেশের নেতারা করেছিল বেইমানী।
গান্ধী, নেহেরু সেদিন নেতাজীর আহ্বানে সাড়া দেয়নি। গান্ধী মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিলেন। নেহেরু সমর্থনের পরিবর্তে তরবারী দিয়ে আহ্বান জানাবে বলেছিলেন।
সেদিন যদি বেইমানি না হোত, তবে হয়তো চার বছর আগেই দেশ স্বাধীন হোত। হোতনা কলকাতা নোয়াখালীর দাঙ্গা। হোত না ভারত ভাগ।
লেডি ব্যাটনের প্রেমে হাবুডুবু খাওয়া নেহেরু, আর সশস্ত্র আন্দোলনের পিছনে ছুড়ি মারা গান্ধী সেদিন যে পাপ করেছিল.. আগামী কাল সে পাপকে খানিকটা লাঘব করার চেষ্টা হতে চলেছে ।
চাপা দেওয়া ইতিহাসের ঢাকনা তুলে সম্মান জানানো হল ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী নেতাজী সুভাষচন্দ্র কে। স্বীকৃতি জানানো হবে আজাদ হিন্দ সরকার কে।
আশাকরি দেরীতে হলেও দেশবাসী এ সাধু উদ্যোগ কে সানন্দে স্বাগত জানাবেন।
ধন্যবাদ জানাবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এ শুভ উদ্যোগ কে।

জীবনের প্রথম যুদ্ধের কথা কি ভুলে গেছেন , আপনি যে জন্ম থেকেই জয়ী

জীবনের প্রথম যুদ্ধের কথা কি ভুলে গেছেন  , আপনি যে জন্ম থেকেই জয়ী


বিজ্ঞান বলে একজন প্রাপ্ত বয়স্ক সুস্থ্য পুরুষ একবার সহবাস করলে যে পরিমান বীর্য নির্গত হয় তাতে ৪০ কোটি শুক্রাণু থাকে। তো,  লজিক অনুযায়ি মেয়েদের গর্ভে যদি সেই পরিমান শুক্রানু স্থান পেতো তাহলে ৪০ কোটি বাচ্চা তৈরি হতো!
এই ৪০ কোটি শুক্রাণু, মায়ের জরায়ুর দিকে পাগলের মত ছুটতে থাকে, জীবিত থাকে মাত্র ৩০০-৫০০ শুক্রাণু।
আর বাকিরা ? এই ছুটে চলার পথে ক্লান্ত অথবা পরাজিত হয়ে মারা যায়।এই ৩০০-৫০০ শুক্রাণু, যেগুলো ডিম্বানুর কাছে যেতে পেরেছে।তাদের মধ্যে মাত্র একটি মহা শক্তিশালী শুক্রাণু ডিম্বানুকে ফার্টিলাইজ করে, অথবা ডিম্বানুতে আসন গ্রহন করে। সেই ভাগ্যবান শুক্রাণুটি হচ্ছে আপনি কিংবা আমি, অথবা আমরা সবাই।
কখনও কি এই মহাযুদ্ধের কথা মাথায় এনেছেন?
১। আপনি যখন দৌড় দিয়েছিলেন" তখন ছিলনা কোন চোঁখ হাত পা মাথা,তবুও আপনি জিতেছিলেন।
২। আপনি যখন দৌড় দিয়েছিলেন"তখন আপনার ছিলোনা কোন সার্টিফিকেট, ছিলোনা মস্তিষ্ক তবুও আপনি জিতেছিলেন।
৩। আপনি যখন দৌড় দিয়েছিলেন তখন আপনার ছিলনা কোন শিক্ষা, কেউ সাহায্য করেনি তবুও আপনি জিতেছিলেন।
৪। আপনি যখন দৌড় দিয়েছিলেন তখন আপনার একটি গন্তব্য ছিলো এবং সেই গন্তব্যের দিকে উদ্দেশ্য ঠিক রেখে একা একাগ্র চিত্তে দৌড় দিয়েছিলেন এবং শেষ অবধি আপনিই জিতেছিলেন।
- এর পর, বহু বাচ্চা মায়ের পেটেই নষ্ট হয়ে যায় । কিন্তু আপনি মারা যান নি, পুরো ১০ টি মাস পূর্ণ করতে পেরেছেন ।
- বহু বাচ্চা জন্মের সময় মারা যায় কিন্তু আপনি টিকেছিলেন ।
- বহু বাচ্চা জন্মের প্রথম ৫ বছরেই মারা যায়। আপনি এখনো বেঁচে আছেন ।
- অনেক শিশু অপুষ্টিতে মারা যায়। আপনার কিছুই হয় নি ।
- বড় হওয়ার পথে অনেকেই দুনিয়া থেকে বিদায় নিয়েছে, আপনি এখনো আছেন ।
আর আজ......
আপনি কিছু একটা হলেই ঘাবড়ে যান, নিরাশ হয়ে পড়েন, কিন্তু কেন? কেনো ভাবছেন আপনি হেরে গিয়েছেন ? কেন আপনি আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছেন ? এখন আপনার বন্ধু বান্ধব, ভাই বোন, সার্টিফিকেট, সবকিছু আছে। হাত-পা আছে, শিক্ষা আছে, প্ল্যান করার মস্তিষ্ক আছে, সাহায্য করার মানুষ আছে, তবুও আপনি আশা হারিয়ে ফেলেছেন। যখন আপনি জীবনের প্রথম দিনে হার মানেননি। ৪০ কোটি শুক্রাণুর সাথে মরণপণ যুদ্ধ করে, ক্রমাগত দৌড় দিয়ে কারো সাহায্য ছাড়াই প্রতিযোগিতায় একাই বিজয়ী হয়েছেন।
কেনো আপনি একটা কিছু হলেই ভেঙে পড়েন??
কেনো বলেন আমি আর বাচতে চাইনা?
কেনো বলেন আমি হেরে গিয়েছি?
এমন হাজারো কথা তুলে ধরা সম্ভব, কিন্তু আপনি কেনো হতাশ হয়ে পড়েন?
আপনি কেন হারবেন? কেন হার মানবেন? আপনি শুরুতে জিতেছেন,শেষে জিতেছেন, মাঝপথেও আপনি জিতবেন।

রবিবার, ২৮ অক্টোবর, ২০১৮

E-Pension সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য জেনে নিন খুব সহজে

E-Pension সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য জেনে নিন খুব সহজে



সরকারী সাহায্যপ্রাপ্ত এবং স্পনসর্ড বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষকা এবং শিক্ষাকর্মীদের জন্য সুখবর। আগামী দিনে আপনাদের উত্তর অবসর কালীন ভাতা বা pension ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন হতে চলেছে ।
বর্তমানে বিদ্যালয় গুলি থেকে যে পদ্ধতির মধ্যে দিয়ে একজন অবসর আসন্ন শিক্ষক/শিক্ষিকা বা শিক্ষাকর্মীর কাগজপত্র সংশ্লিষ্ট ডি আই অফিসের মাধ্যমে পূর্তভবন হয়ে সংশ্লিষ্ট ট্রেজারি দপ্তরে পৌছনো হয়, অর্থাৎ শিক্ষাদপ্তরের 26/05/1998 তারিখের বিজ্ঞপ্তি 88/SED, তার পরিবরর্তে এসেছে 62-SSE/17 তাং 17/04/2017।
আসুন এক ঝলকে দেখে নেওয়া যাক এই নতুন ব্যবস্থার মধ্যে দিয়ে কি ভাবে আগামী দিনে উত্তর অবসর কালীন ভাতা বা pension এর জন্য দরখাস্ত করতে হবে :
⚫১ম ধাপ : অবসরের ঠিক এক বছর আগে আপনার mobile phone (যেটা আপনার নামে osms.wbsed.gov.in পোর্টালে দেখানো আছে) বা আপনার registered email account এ একটা sms পৌছে যাবে। এই sms এর মাধ্যমে আপনি একটা log in ID এবং OTP পাবেন (যার মেয়াদ মাত্র ১৫ দিন)।
এই log in ID র মাধ্যমে আপনাকে নির্দিষ্ট ওয়েব সাইটে প্রবেশ করতে হবে ।
⚫২য় ধাপ: ওয়েব সাইটে log in করে আপনাকে দুটো ফর্ম পুরন করতে হবে। Part A এবং Part B।
Part A তে লিপিবদ্ধ আছে আপনার চাকুরী সম্বন্ধিত প্রাথমিক তথ্যসমূহ ( approval memo number, date of appointment, bank account details, name of treasury etc), সেগুলির যথার্থতা সম্বন্ধে নিশ্চিন্ত হলে আপনি আপনার DCRG এবং LTA র নমিনিদের নাম নথীভুক্ত করবেন এবং জানাবেন যে আপনি pension "commute" করতে চান কি না। এর পর আপনি page টা save করলেই এসে যাবে part B.
Part B তে আপ আপনি আপনার pension commutation এর হার লিপিবদ্ধ করবেন। মনে রাখবেন, commutation করতে স্বীকৃত হলে তবেই এই অংশে আপনার কাজ আছে, নতুবা নয়। পূর্বের ন্যায় আপনি আবার তথ্যসমূহ save করবেন ।
⚫৩য় ধাপ : আপনার পূরনকরা part A এবং part B তিন খানা করে প্রিন্ট আউট বের করতে হবে। প্রতিটিতে সাক্ষর করে আপনি দুই কপি আপনার বিদ্যালয় প্রধানের কাছে জমা দেবেন। সাথে দিতে হবে আপনার নমুনা সাক্ষর ( একটি সাধারণ কাগজে তিন খানা সাক্ষর, কোনো gazetted officer দ্বারা attested) এবং আপনার তিন কপি ছবি ( বিবাহিতদের ক্ষেত্রে স্বামী বা স্ত্রীর সাথে যৌথ ছবি, বিদ্যালয় প্রধান দ্বারা attested)।
⚫৪র্থ ধাপ : বিদ্যালয় প্রধান আপনার কাছ থেকে এই document গুলো নিয়ে তার ভাগের কাজ শুরু করবেন*।
Portal এর বাকি তিনটে form ( Part C, D এবং E) এবং Annexure 1 (যার মাধ্যমে তিনি part A এবং part B certify/ authenticate করবেন) তিনি পূরণ করবেন এবং প্রতিটির দুই কপি করে print out নেবেন।
Part C- Pay details and qualifying service certificate.
Part D- e-service book
Part E- Pay certificate
বিদ্যালয় থেকে সংশ্লিষ্ট ডি আই অফিসে প্রতিটি ফর্মের একটি করে কপি এবং আপনার service book পাঠিয়ে দেওয়া হবে। সাথে অবশ্যই আপনার নমুনা সাক্ষর এবং যৌথ বা একক ছবি।
⚫৫ম ধাপ : এর পরের অংশে ডি আই দপ্তর থেকে এই সকল তথ্য ( কাগজ নয়) পূর্ত ভবনে on line পাঠিয়ে দেওয়া হবে এবং এক পদ্ধতিতে সকল তথ্য treasury office এ চলে যাবে।
সমস্ত তথ্যাবলী সম্বন্ধে সন্তুষ্ট হয়ে, Treasury Officer আপনার Pension Payment Order এর print out বের করে আপনাকে sms বা email এর মাধমে জানিয়ে দেবেন। এই তথ্য বিদ্যালয় প্রধানের কাছেও পৌছে যাবে। বিদ্যালয় প্রধান এর পরে online "no litigation certificate" পাঠিয়ে দেবেন treasury officer এর কাছে ( তিন দিনের মধ্যে) যার পর আপনার ব্যাঙ্ক এক্যাউন্টে জমা পরবে আপনার উত্তর অবসর কালীন ভাতা বা pension।
বি: দ্র:
১) প্রতিটি ধাপে online acknowledging slip তৈরি হবে এবং আপনার registered mobile phone বা email account এ তা পৌছে যাবে।
২) নির্দিষ্ট সময় সীমার মধ্যে প্রত্যেকের কাজ সমাধা করতে হবে, নতুবা কৈফিয়ত দিতে হবে।
৩) আপনার নামে একটা বিশেষ ID তৈরি হবে, এবং একটা নাম্বার থাকবে যার সাহায্যে আপনি আপনার status জানতে পারবেন।
৪) আপনার অংশের কাজ আপনাকেই সম্পূর্ণ করতে হবে। তথ্যাবলী অসম্পূর্ণ বা ভুল হলে বিদ্যালয় প্রধান আপনাকে সেটা ফিরিয়ে দিতে পারেন। সেই ক্ষেত্রে আপনাকে পূনরায় সেই তথ্যাবলী সঠিক ভাবে পূরণ করে on line জমা করতে হবে ।
৫) D.A. getting বিদ্যালয় গুলি আপাতত এই পদ্ধতীর আওতায় আসছে না।

এই গাছটি হতে পারে আপনার জন্য প্রাণঘাতী !! নিজেকে সুরক্ষিত রাখার জন্য এক্ষুনি লেখাটি পড়ুন !!

এই গাছটি হতে পারে আপনার জন্য প্রাণঘাতী !! নিজেকে সুরক্ষিত রাখার জন্য এক্ষুনি লেখাটি পড়ুন !!




গাছটির নাম পার্থেনিয়াম । প্রকৃত অর্থে পার্থেনিয়াম এক ধরনের বিষাক্ত আগাছা।কৃষিক্ষেত্রের পাশাপাশি স্বাস্থ্যের পক্ষেও অত্যন্ত দূষক এই উদ্ভিদটি । এর বৈজ্ঞানিক নাম Parthenium Hysterophorus. কয়েক বছর আগে রাস্তা বা রেললাইনের ধারেই দেখা মিলত। কিন্তু এখন রাস্তার ধারে, আপনার বাড়ির পাশে, খেলার মাঠ, কৃষিজমি থেকে শুরু করে যত্রতত্র থাবা বসাতে শুরু করেছে বিষাক্ত এই পার্থেনিয়াম।